Templates by BIGtheme NET
২৩ মে, ২০১৯ ইং, ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৭ রমযান, ১৪৪০ হিজরী

গবেষণা প্রতিবেদন
ইসলামের ধারেকাছেও নেই কোন মুসলিম দেশ

প্রকাশের সময়: মে ১৪, ২০১৯, ১০:৫৪ অপরাহ্ণ

ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীভাবে কোন দেশের মানুষ ইসলামের বিধান সবচেয়ে বেশি মেনে চলে? এমন প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে একটি গবেষণা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও বাণিজ্য বিভাগের প্রফেসর হুসেইন আসকারি। সেই গবেষনায় এসেছে বিস্ময়কর তথ্য।

গবেষণায় দেখা গেছে ইসলামি রীতি মেনে চলা দেশের তালিকার শীর্ষে কোন ইসলামি দেশের নাম নেই। তালিকার ৩৩ নম্বরে রয়েছে মালয়েশিয়া, কুয়েত রয়েছে ৪৮, বাহরাইন ৬৪ এবং সৌদি আরব রয়েছে ১৩১ নম্বরে। আর বাংলাদেশের অবস্থান সৌদি আরবেরও নীচে।

উল্টোদিকে ইসলামি বিধান মেনে চলা দেশের তালিকার শীর্ষে রয়েছে আয়ারল্যান্ড, ডেনমার্ক, সুইডেন, যুক্তরাজ্য, নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ফিনল্যান্ড, নরওয়ে ও বেলজিয়াম। তাদের সামাজিক অবস্থান, পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধের মানদণ্ড ইসলাম সম্মত। সততা, সত্যবাদিতা, পরোপকার নিয়ে তাদের ধারণা ইসলাম সাদৃশ্য। এছাড়া প্রতারণা, দ্বিচারিতা, অসাধুতা তারা ততটুকুই ঘৃণা করে যতটুকু ইসলামের বিধানে বলা আছে।

গবেষক হুসেইন আসকারি বলেন, তথাকথিত ইসলামি দেশের মুসলমানরা পৃথিবীর সবার চেয়ে বেশি ধর্মীয় বয়ান,ওয়াজ নসিহত শোনেন নামাজ আদায় করেন, রোজা রাখেন, হিজাব, দাড়ি, লেবাস নিয়ে অতি সতর্ক, নারীরা পর্দা মেনে চলেন। কিন্তু সমাজে দুর্নীতি আর পেশাগত জীবনে অসদুপায় অবলম্বনের কারণে তারা কেউ শান্তিপূর্ন দেশ হতে পারেনি।

একজন চাইনিজ ব্যবসায়ী  বলেন, মুসলিম ব্যবসায়ীরা আমাদের কাছে এসে নকল পণ্য বানানোর অর্ডার দিয়ে বিখ্যাত সব কোম্পানির লেভেল লাগাতে বলে। কিন্তু খাবার সময় তারা জিজ্ঞাস করে এটি, হালাল না হারাম? আমি তাদের প্রশ্ন করেছিলাম, তাহলে নকল মাল বিক্রি করা কি হালাল?

গবেষণায় বলা হয়। ইসলামের দুটি অংশ, একটি হচ্ছে বিশ্বাস অপরটি হচ্ছে সেই অনুযায়ী কাজ করা। দুটোকে একত্রে প্র্যাকটিস না করলে ইসলাম অসম্পূর্ন থেকে যায়। কিন্তু মুসলিমরা ইসলামের ব্যপারে বেশ সোচ্চার হলেও নিজ জীবনে ইসলামের নীতি একেবারে এড়িয়ে চলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

two × 2 =