Templates by BIGtheme NET
২৩ মে, ২০১৯ ইং, ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৭ রমযান, ১৪৪০ হিজরী

কৃষকদের ধানক্ষেতে আগুন
সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে সক্রিয় একটি মহল !

প্রকাশের সময়: মে ১৫, ২০১৯, ৫:১৮ অপরাহ্ণ

একের পর এক সাফল্য অর্জন করে টানা তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় রয়েছে আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার সরকার। কিন্তু এই সরকারের সাফল্য সহ্য হচ্ছে না একটি বিশেষ মহলের। সম্প্রতি কোটা সংস্কার, প্রশ্নপত্র ফাঁস ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে যেসব আন্দোলন হয়েছে, একটি বিশেষ মহল সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে সেগুলো ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেছে। যা কারো অজানা নয়। নতুন করে আবারও সেই চক্রটি সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

জানা গেছে, ন্যায্যমূল্য না পেয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে কৃষকদের ধানক্ষেতে আগুন দেওয়ার ঘটনাকে আবারও সরকারকে বেকাদায় ফেলার জন্য ব্যবহারের পায়তারা করছে একটি বিশেষ মহল। রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে ধান ছিটিয়ে কৃষকদের মানববন্ধনে যা লক্ষ্য করা গেছে। সেখানে হঠাৎ করেই উপস্থিত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ সভাপতি ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা নুরুল হক নুর। এসময় তিনি কৃষকদের ধানের ন্যায্য মূল্যের দাবির আন্দোলনকে সরকারের বিরুদ্ধে বিশোধাগারের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেন।

মানববন্ধনে নুরুল হক নুর বলেন, উন্নয়নের ফাঁকা বুলি আওড়ানো হচ্ছে। রাস্তা-ঘাট দুই-চারটি ফ্লাইওভার করলেই উন্নয়ন হয় না, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে হবে। জিডিপি বাড়ছে, মানুষের জীবনমান উন্নত হচ্ছে—এই সমস্ত ফাঁকা বুলি দিলে হবে না। বাস্তবতা কিন্তু ভিন্ন। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে মানুষের চাপা ক্ষোভ বিস্ফোরণ হবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

শুধু ডাকসুর ভিপিই নন, সারা দেশে কৃষকদের ধানের ন্যায্য মূল্যের দাবিকে সরকারের বিরুদ্ধে অপ্রচারের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে একটি বিশেষ মহল। বিশ্লেষকরা বলছেন, তাদের উদ্দেশ্য ধানের ন্যায্য মূল্য নয়, সাধারণ জনগণের চোখে সরকারকে বিতর্কিত করা।

বর্তমান সরকারের আমলে সময়মতো সার, বীজ, কীটনাশক দিয়ে কৃষকদের সহযোগিতা করা হচ্ছে। এছাড়া বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে কৃষকদের পুনর্বাসনেও এ সরকার বদ্ধপরিকর। ইতোমধ্যে যা মানুষের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এই বিষয়টি মূছে দিতেই কৃষকদের আন্দোলকে ব্যবহার করা হচ্ছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

তারা বলছেন, কৃষকরা ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন না, সে ব্যাপারে তারা আন্দোলন করতেই পারে। কিন্তু তাদের ব্যবহার করে কেউ সরকারের বিরুদ্ধে মন্তব্য করবে সেটা কাম্য নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

11 − eight =