Templates by BIGtheme NET
১৩ জুন, ২০১৯ ইং, ৩০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ৯ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

কালো টাকা সাদা করা যাবে যেভাবে

প্রকাশের সময়: জুন ১৩, ২০১৯, ১০:৩১ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট :

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ফ্ল্যাট ও জমি কেনার মাধ্যমে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হয়েছে। কালো টাকাকে অর্থনীতির মূলধারায় আনার জন্য এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আগামী অর্থবছরের বাজেট পেশ করা হয়।

অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে শিল্প স্থাপনে এই কালো টাকা বিনিয়োগ করা যাবে।

মাত্র ১০ শতাংশ আয়কর দিলে অর্থের উৎস সম্পর্কে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) কোনো প্রশ্ন করবে না।

২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত এ সুযোগ বহাল থাকবে। অর্থ আইনের মাধ্যমে আয়কর অধ্যাদেশে নতুন ধারা যুক্ত করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তৃতায় বলেন, বিনিয়োগ বৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে শিল্প স্থাপনে অপ্রদর্শিত আয় থেকে বিনিয়োগ করা অর্থের ওপর ১০ শতাংশ হারে কর দিলে ওই অর্থের উৎস সম্পর্কে আয়কর বিভাগ থেকে কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করা হবে না।

উদাহরণস্বরূপ, একজন ব্যক্তি ১ কোটি কালো টাকা রয়েছে। অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে বিনিয়োগ করে এ টাকা সাদা করা যাবে। এ জন্য তাকে ১০ লাখ টাকা ট্যাক্স দিতে হবে।

বাকি ৯০ লাখ টাকার উৎসের ব্যাপারে আয়কর বিভাগ প্রশ্ন করবে না। মূলত কালো টাকাকে বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে এ সুযোগ দেয়া হয়েছে।

ব্যক্তিখাতে বিনিয়োগে কয়েক বছর ধরে খরা থাকলেও সরকার আশা করছে, এ সুযোগ দেয়া হলে দেশ থেকে অর্থপাচার কমবে এবং উদ্যোক্তারা স্থানীয় শিল্প স্থাপনে আরও উৎসাহিত হবেন।

বর্তমানে কালো টাকা সাদা করার ক্ষেত্রে দুটি নিয়ম চালু আছে। প্রথমত, নির্ধারিত করের অতিরিক্ত জরিমানা দিয়ে যে কোনো খাতের কালো টাকা বিনিয়োগ করা যায়।

দ্বিতীয়ত, প্লট-ফ্ল্যাট ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রতি বর্গমিটারের জন্য নির্দিষ্ট হারে কর দিয়ে।

সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান ২০০৩-০৪ অর্থবছরের বাজেটে প্রচলিত আয়কর অধ্যাদেশের ধারা ১৯ (এএএ) অনুযায়ী নির্ধারিত কর দিয়ে প্রথমবারের মতো দুই বছরের জন্য যে কোনো শিল্পে কালো টাকা বিনিয়োগ করে সাদা করার সুযোগ দেন।

অবশ্য নানা সমালোচনা ও বির্তকের পরিপ্রেক্ষিতে পরে এ সুযোগ বাতিল করা হয়। দীর্ঘ এক যুগের বেশি সময় পর বিদ্যমান আইনের সেই ধারা পুনরুজ্জীবিত করে আবারও সুযোগ দিল বর্তমান সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

1 × 1 =