Templates by BIGtheme NET
২১ আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৬ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৯ জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী
Muslim pilgrims on the second day of the Hajj pilgrimage 2009....epa01946397 Muslim pilgrims gather on the Mountain of Mercy at Arafat, Saudi Arabia, on the second day of the Hajj pilgrimage 2009, 26 November 2009. The Hajj pilgrimage is one of the five pillars of Islam, it gathers over 2 million worshippers who complete various rituals. It started on 25 November. Seventy-seven people were killed in flash floods as the annual hajj pilgrimage began in the desert kingdom of Saudi Arabia, the Saudi government reported 26 November. The civil defence authority for the holy Muslim city of Mecca said that 25 Novembers 'torrential rains and thunderstorms' had turned streets into rivers of mud, destroyed homes and swept away cars. EPA/AHMAD TAHON

‘লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাতের ময়দান

প্রকাশের সময়: আগস্ট ১০, ২০১৯, ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ

হজের মূল আনুষ্ঠানিতকতা পালনে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা হাজিরা শনিবার আরাফাতের ময়দানে সমবেত হয়েছেন। এবছর প্রায় ২৫ লাখ মুসলিম পবিত্র হজ পালন করছেন।

হজের তিন ফরজের মধ্যে ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এদিন আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত না হলে হজ হবে না।

আজ সূর্যোদয়ের পর লাখ লাখ হাজি মিনা থেকে আরাফাতের ময়দানের দিকে রওনা হন। ট্রেনে, বাসে ও হেঁটে হাজিরা আরাফাতের ময়দানে হাজির হন তারা।

এসময় লাখো কণ্ঠে ছিল একটাই রব- “লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হাম্‌দা ওয়ান নি’মাতা লাকা ওয়াল মুল্‌ক, লা শারিকা লাক (আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার)।”

আরাফাতের ময়দানে কেউ পাহাড়ের কাছে, কেউ সুবিধাজনক জায়গায় বসে ইবাদত করেন। কেউ কেউ যান জাবালে রহমতের কাছে। আবার কেউ কেউ যান মসজিদে নামিরায় হজের খুতবা শুনতে। সূর্যাস্ত পর্যন্ত তারা এখানে অবস্থান করবেন।

এরপর সেখান থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দূরে মুজদালিফায় গিয়ে রাতযাপন ও পাথর সংগ্রহ করবেন। রবিবার ভোরে ফজরের নামাজ আদায় করে মুজদালিফা থেকে মিনায় ফিরবেন। এ সময় হাজিরা বড় শয়তানকে পাথর মারবেন, কোরবানি দেবেন, মাথার চুল ছেঁটে মক্কায় গিয়ে কাবা শরিফ তাওয়াফ করবেন।

পাথর নিক্ষেপ পরবর্তী কাজ হলো কোরবানি করা। হাজিরা কোরবানির টাকা নির্ধারিত ব্যাংকে আগেই জমা দেওয়ায় কোরবানির জন্য নির্ধারিত স্থানে যেতে হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

4 × 3 =