Templates by BIGtheme NET
৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১০ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী

বর্জ্য পুড়িয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ সরকারের

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ১২, ২০১৯, ৭:১৫ অপরাহ্ণ

গৃহস্থালির বর্জ্য দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে সরকার। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে এ প্রকল্প পরিচালিত হবে। বেসরকারি উদ্যোক্তারাও এতে বিনিয়োগের ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছেন। এ বিষয়ে সচিবালয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন তারা। উন্নত বিশ্বের মডেল অনুসরণে এ প্রকল্পে ইনসিনারেশন (ক্ষতিকর বর্জ্য ধ্বংস করা) পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। সব প্রক্রিয়া শেষ হলে রাজধানীর নির্ধারিত একটি জায়গায় স্থাপন করা হবে ইনসিনারেশন প্লান্ট। মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র বলছে, বেসরকারি উদ্যোক্তারা এ উদ্যোগে বিনিয়োগ করলে তারাও উৎপাদিত জ্বালানি বিক্রির মুনাফার অংশীদার হবেন। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডকে এই জ্বালানি কিনতে হবে। এ নিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ ও উদ্যোক্তাদের মধ্যে আলোচনা চলছে। প্রথম পর্যায়ে এর কার্যক্রম শুরু হবে ঢাকার উত্তর-দক্ষিণ সিটি ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে। এরপর ঢাকার সিটির নিকটবর্তী পৌরসভা এবং পর্যায়ক্রমে সারাদেশ এর আওতায় আসবে।

এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, গৃহস্থালির ক্ষতিকর সব বর্জ্য ইনসিনারেশন পদ্ধতিতে ধ্বংস করা হবে। বেসরকারি উদ্যোক্তারা বর্জ্য ধ্বংসে সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন। সিটি ও পৌর কর্তৃপক্ষ বর্জ্য পৌঁছে দিয়ে তাদের এ কাজে সহায়তা করবেন।

ইতোমধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি থেকে এ-সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছে। বর্জ্য ধ্বংসের প্লান্ট এবং সিটি ও পৌরসভার বর্জ্য ব্যবস্থাপনার পদ্ধতি নিয়ে চলছে আলোচনা-পর্যালোচনা। বিনিয়োগকারীদের কীভাবে বর্জ্য দিয়ে সহায়তা করা যাবে, তা নিয়েও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, বর্জ্য পুড়িয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রক্রিয়ায় স্থানীয় সরকার বিভাগই নেতৃত্ব দেবে। এ প্রক্রিয়াটিকে টেকসই ও কার্যকর করার জন্য সিটি করপোরেশনের অংশগ্রহণ ও অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করতে হবে। এ ছাড়া নিজ নিজ ভূমিকা রাখবে বিদ্যুৎ বিভাগ, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডসহ (বাবিউবো) অন্যান্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা।

২০০০ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার থাকাকালে প্রথমবারের মতো বর্জ্য ধ্বংসের লক্ষ্যে সমন্বিত উদ্যোগ নেওয়া হয়। তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে সচেষ্ট হয়েছে সরকার। এ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বর্তমান স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল উন্নত দেশগুলোর বর্জ্য অপসারণে অনুসৃত মডেল সম্পর্কে জানতে কয়েকটি দেশও সফর করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

eleven − nine =