Templates by BIGtheme NET
৮ জুলাই, ২০২০ ইং, ২৪ আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১৫ জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী

সেবা নিতে নামী হাসপাতাল ছেড়ে শেখ ফজিলাতুন নেছায় রোগীরা

প্রকাশের সময়: জানুয়ারি ১৭, ২০২০, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার কড়িহাতা ইউনিয়নের বাসিন্দা আমেনা বেগম (৫৭) দীর্ঘদিন থেকে কিডনি রোগে ভুগছেন। তিনি চিকিৎসা নিতে গাজীপুরের কাশিমপুর তেতুইবাড়ি এলাকায় শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতালে এসেছেন।

ভালো চিকিৎসার জন্য এক সময় ঢাকার নামী-দামী হাসপাতালে ছুটলেও এখন আমেনা বেগমের মত গাজীপুর ও আশপাশের জেলার শত শত রোগী বিশ্বমানের চিকিৎসা সেবা নিতে শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতালেই আসেন। এসব এলাকার বিপুল সংখ্যক পোশাক শ্রমিকও এ হাসপাতাল থেকে স্বল্পমূল্যে অত্যাধুনিক স্বাস্থ্য সেবাগ্রহণ করছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও তার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসা সেবা নিতে প্রায়ই এ হাসপাতালে আসেন।

আমেনা বেগমের সঙ্গে আসা তার ছেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারহান শাহরিয়ার বাংলানিউজকে বলেন, আগে আমাদের পরিবার বা আত্মীয়দের কেউ অসুস্থ হলে ঢাকার বড় বড় সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে যেতাম। এখন বাড়ির কাছে এ হাসপাতালে আন্তর্জাতিক মানের চিকিৎসা সেবা পাওয়া যায়। আমাদের আত্মীয় স্বজন, পরিচিত সবাই এখন এই হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

আমেনা বেগম বলেন, কিডনিতে সমস্যা দেখা দেওয়ার পর শুরুতে ঢাকায় চিকিৎসা নিতে শুরু করি। পরে অনেকের কাছে এই হাসপাতালের সুনাম শুনি। এরপর থেকে এখানে চিকিৎসা নিচ্ছি। এখানকার ডাক্তাররা খুব ভালো, চিকিৎসাও খুব ভালো। আল্লাহর রহমতে আগের চেয়ে অনেক ভালো আছি।

গাজীপুর সদরের বাসিন্দা গার্মেন্টস কর্মী আফরোজা মিম বলেন, এই এলাকায় উন্নত চিকিৎসা সেবার অভাব ছিল। এখন আমাদের মতো স্বল্প আয়ের শ্রমিকরা এ হাসপাতলে চিকিৎসা নিতে পারি।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে নির্মিত শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতালের সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করছে মালয়েশিয়ার বিখ্যাত সেবা সংস্থা কামপুলান পেরুতান জহর (কেপিজে)।

অতি দরিদ্র রোগীদের বিনামূল্যে এবং দরিদ্র রোগীদের স্বল্পমূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হয় এই হাসপাতালে।

অভিজ্ঞ চিকিৎসকগণের সেবার পাশাপাশি অত্যাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম ও প্রযুক্তি সম্বলিত এ হাসপাতালে উন্নত দেশের মতো বিভিন্ন জটিল রোগের বিশ্বমানের চিকিৎসা হয়। ইতিপূর্বে খাদ্যনালী প্রতিস্থাপনসহ বিভিন্ন রোগে জটিল অপারেশনও এখানে সফলভাবে হয়েছে।

এখানে বহির্বিভাগ ও অভ্যন্তরীণ বিভাগে সব ধরনের রোগের আন্তর্জাতিক মানের স্বাস্থ্য চিকিৎসা ও অপারেশন করা হয়। সড়ক দুর্ঘটনায় আহতদের দ্রুত চিকিৎসা সেবা দিতে আছে বিশেষ ব্যবস্থা। এছাড়া প্রতিবন্ধী ও নির্যাতিতা নারীদের সেবায় অগ্রধিকার দেওয়া হয়।

বছরখানেক আগে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার এলাকার বাসিন্দা আশা আক্তার আঁখি (১৯) নামে এক তরুণী জেদের বশে হারপিক খেয়ে ফেলেন। এতে তার খাদ্যনালী পুড়ে যায়। বিভিন্ন হাসপাতালে ছোটাছুটির পর শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা হয় আঁখির।

আঁখির খাদ্যনালী কেটে তার নিজের কোলন থেকে খাদ্যনালী প্রতিস্থাপন করা হয়। চিকিৎসকরা তার বৃহদাস্ত্রের অংশ বিশেষ দিয়ে অন্ননালী প্রতিস্থাপন করেন। পাকস্থলীর বন্ধ হয়ে যাওয়া অংশ বাইপাস করা হয় ক্ষুদ্রান্ত্রের অংশ দিয়ে। তার নাড়িতে ৬টি জোড়া দেয়া হয়। দীর্ঘ চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে আঁখি এখন স্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব হাসান জাহিদ তুষার বাংলানিউজকে জানান, অর্থনৈতিকভাবে অসচ্ছল আঁখির চিকিৎসা ব্যয় বহন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আশা আক্তার আঁখি (১৯) বাংলানিউজকে বলেন, সবাই ভেবেছিল আমি আর বাঁচবো না। শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতালের উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং দক্ষ চিকিৎসকদের কারণে হয়তো নতুন জীবন পেয়েছি।

তিনি বলেন, ভাগ্য ভালো সে সময় কাছাকাছি উন্নত হাসপাতাল পাওয়া গেছে। নইলে ঢাকা নিতে নিতেই হয়তো অন্য কিছু ঘটতে পারবো।

তার চিকিৎসা ব্যয় বহন ও গাজীপুরে এ রকম একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান আঁখি।

আশা আক্তার আঁখির সফল এই অপারেশন করেন ডা. রাজীব হাসান ও ডা. কাওছার আলম।

শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতালের চিকিৎসক সার্জন রাজীব হাসান ‍বাংলানিউজকে জানান, এ হাসপাতালে খাদ্যনালী, পাকস্থলী, কোলন, লিভার ও ক্যান্সারসহ সব ধরনের রোগের অপারেশন ও চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, এ হাসপাতালে সব ধরনের রোগের উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হয়। উন্নত চিকিৎসার ঢাকার নামী-দামী হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। এখানকার মানুষও মনে হয় তাই চিন্তা করে। কারণ বিভিন্ন জটিল রোগের চিকিৎসা নিতে তারা এ হাসপাতালে আসেন। আগে যাদের অনেকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় যেতেন।

হাসপাতালটির অ্যাসিসটেন্ট ম্যানেজার (বিসনেস ডেভেলপমেন্ট সার্ভিস ) আবুল হাসান বাংলানিউজকে বলেন, এখানে অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবা গ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় আশপাশের এলাকাগুলোতে যারা আছেন তারা এখন আর ঢাকামুখী হচ্ছেন না। তারা এখানেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। আগে এ সুযোগটা ছিল না।

দরিদ্র রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হয় জানিয়ে তিনি বলেন, দরিদ্র রোগীদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফান্ড তৈরি করে দিয়েছেন। এই ফান্ডের মাধ্যমে অতি দরিদ্র রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়।

হাসপাতালে ইনডোর সেবার বাইরে বহির্বিভাগে অভিজ্ঞ ডাক্তাররা চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকেন।

শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতাল এবং নার্সিং ইনিস্টিটিউটে ইন্টারনাল মেডিসিন, নিউরোলজি, স্ত্রী রোগ ও প্রসুতি সেবা, জেনারেল ও ল্যাপারোস্কপিক সার্জারি, হৃদরোগ, অর্থোপেডিক্স, গ্যাসট্রোলজি, শিশু রোগ চিকিৎসা, চক্ষু রোগ, নাক-কান-গলা, কিডনি, লিভার, ফুসফুস, ইউরোলজি, বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি, ডায়াবেটিস, মনোরোগ, চর্ম-এলার্জি ও যৌন রোগসহ সব ধরনের রোগের চিকিৎসা দেওয়া হয় বলে জানান আবুল হাসান।

তিনি আরও জানান, এ হাসপাতালে দেওয়া উল্লেখযোগ্য অন্যান্য সেবার মধ্যে রয়েছে- ২৪ ঘণ্টা অ্যাকসিডেন্ট এবং জরুরি সেবা ইউনিট, এক্স-রে, আল্ট্রাসোনোগ্রাম, এমআরআই, সিটি স্ক্যান, ৪-ডি আলট্রাসাউন্ড, হাড়ের মিনারেল ঘনত্ব (বিএমডি) টেস্ট, আইসিউ, সিসিইউ, অত্যাধুনিক অপারেশ থিয়েটার, ক্যাথ ল্যাব, এমআর এনজিওগ্রাম, সিটি এনজিওগ্রাম, সিটি করোনারি এনজিওগ্রাম, এনজিওপ্লাস্টি, কিডনি ডায়ালাইসিস, ফিজিওথেরাপি সার্ভিস, স্পেশাল বেবি কেয়ার ইউনিট, সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে সব ধরনের প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা-নিরীক্ষা, পেইন ম্যানেজমেন্ট সেন্টার, পথ্যব্যবস্থাবিদ্যা (ডায়টেরি), ওজন নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র, টিকাদান, ২৪ ঘণ্টা অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস ইত্যাদি।

২০১৩ সালের ১৮ নভেম্বর মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দাতোসিরি মোহাম্মদ নজিব বিন তুন আবদুল রাজাক, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার ছোটবোন শেখ রেহানা যৌথভাবে এই হাসপাতালের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। এর আগে ২০১১ সালের ১৪ জানুয়ারি এই হাসপাতালটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। এটি একটি পাবলিক-প্রাইভেট-পার্টনারশিপ (পিপিপি) প্রতিষ্ঠান। পরে ২০১৫ সালে এখানে শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে নার্সিং কলেজেরও উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রতিবেদনটি তৈরিতে সহায়তা করেছেন বাংলানিউজের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট মো. রাজীব সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

12 + 3 =