Templates by BIGtheme NET
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং, ১৬ ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ৩ রজব, ১৪৪১ হিজরী

যেভাবে নোনা পানি মিষ্টি হয়

প্রকাশের সময়: ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০, ১২:২৪ অপরাহ্ণ

বিশেষ সংবাদ: মহান আল্লাহ সাগরে পানি জমা রেখেছেন। আর সেই সাগরের পানিকে লবণাক্ত বানিয়েছেন।

আল্লাহ যদি এ পানি মিষ্টি বানাতেন, তাহলে কিছুদিন পর এই পানি দুর্গন্ধযুক্ত হয়ে নষ্ট হয়ে যেত।

প্রতিদিন লাখ লাখ প্রাণী সাগরে মারা যাওয়া সত্ত্বেও পানিতে কোনো পরিবর্তন আসে না।

সাগরের পানির স্বাদ পরিবর্তন হয় না। তাতে দুর্গন্ধ সৃষ্টি ও নষ্টও হয় না।

যদি বলা হতো, যখন পানির প্রয়োজন হবে তখন সাগর থেকে পানি আনতে হবে। তাহলে মানুষের জন্য অনেক কষ্টসাধ্য কাজ হতো!

প্রথমত, সবার জন্য সাগরে যাওয়া অসম্ভব ছিল।

দ্বিতীয়ত, পানির লবণাক্ততার কারণে তা পান করা দুষ্কর ছিল।

তাই মহান আল্লাহ তাআলা সাগর থেকে মেঘ আকাশে তুলে নেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন ।

মেঘের মাধ্যমে সাগর থেকে লবণাক্ত পানি যখন আকাশে ওঠে তখন পানির লবণাক্ততা নিচে থেকে যায় আর শুধু মিঠা পানি ওপরে উঠে যায়।

এরপর আল্লাহ তাআলা সেই পানি পরিমাণ মতো পাহাড়ে বর্ষণ করেন।

পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আমি আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করে থাকি পরিমাণ মতো, অতঃপর আমি জমিনে সংরক্ষণ করি।’ (সুরা : মুমিনুন, আয়াত : ১৮)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

nineteen − 8 =