Templates by BIGtheme NET
২৮ মে, ২০২০ ইং, ১৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৪ শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী

বাংলাদেশে আঘাত হানা সবচেয়ে ভয়াল ৫ ঘূর্ণিঝড়

প্রকাশের সময়: মে ২০, ২০২০, ৯:০৪ অপরাহ্ণ

 

২০ মে বিকালে বাংলাদেশের সুন্দরবন অঞ্চল দিয়ে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে ঘণীভূত হয়ে ঝড়টি গত ৩ দিনে নিজের শক্তি বাড়িয়ে সুপার সাইক্লোন অর্থাৎ ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এর আগে বাংলাদেশের ইতিহাসে ৫টি সবচেয়ে ভয়াল ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছে। ওইসব ঘূর্ণিঝড়ের ঘটনায় বহু মানুষের প্রাণহানিসহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল।

সরকারি তথ্যের উদ্বৃতি দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, ১৯৬০-২০১৭ সাল পর্যন্ত মোট ৩৩টি বড় সাইক্লোনের ঘটনার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। আবহাওয়া অধিদফতর ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ শুরু করে ২০০৭ সাল থেকে। এর আগে একটা সময় ঘূর্ণিঝড় বা সাইক্লোনের নামকরণ হতো না।

বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য পরিসংখ্যান বলছে, ১৯৬০ সাল থেকে ২০০৭ সালে সিডরের পর্যন্ত বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড়গুলোকে ‘সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম’ বা প্রবল ঘূর্ণিঝড় হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

২০০৭ সালে প্রথম স্পষ্ট নামকরণ করা হয়। ২২৩ কিলোমিটার বেগে ধেয়ে আসা এবং ১৫-২০ ফুট উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাসে নিয়ে আসা সেই ঘূর্ণিঝড় ছিল সিডর যাকে সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম উইথ কোর অব হারিকেন উইন্ডস (সিডর) নাম দেয়া হয়।

বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় হিসেবে বিবেচনা করা হয় ১৯৭০ সালের ঘূর্ণিঝড় এবং ১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড়কে।

উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ঘূর্ণিঝড়:
বাকেরগঞ্জের প্রবল ঘূর্ণিঝড়- ১৮৭৬ সালের ১লা নভেম্বরের ঘূর্ণিঝড়টি অনেকের কাছে বাকেরগঞ্জের প্রবল ঘূর্ণিঝড় নামে পরিচিত। তাতে প্রাণ হারিয়েছিল ২ লাখ মানুষ, যখন ১০ থেকে ৪৫ ফুট উঁচু জলোচ্ছ্বাস হয়।

১৯৬০ সালের ৩১ অক্টোবরের প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে ৫ লাখ ১৪৯ জন নিহত হয়। ৬.১ মিটার উঁচু জলোচ্ছ্বাস ছিল।

১৯৬৬ সালে চট্টগ্রামে ১ অক্টোবর ২০-২২ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের প্রবল ঘূর্ণিঝড়

২০০৮ সালে ঘূর্ণিঝড় নার্গিস এর পূর্বাভাস দেওয়া হলেও পরে তা বার্মার উপকূলে আঘাত হানে। মিয়ানমারে এর প্রভাবে বহু ক্ষতি হয়।

২০১৩ সালের ১৬ মে নোয়াখালী-চট্টগ্রাম উপকূলে জলোচ্ছ্বাসের ঘূর্ণিঝড় ‘মহাসেন’’

২০১৫ সালের ৩০ জুলাই চট্টগ্রাম-কক্সবাজার উপকূলে ৫-৭ ফুট উচ্চতার ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেন’

২০১৬ সালের ২১ মে বরিশাল-চট্টগ্রাম উপকূলে ৪-৫ ফুট উচ্চতার ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’

২০১৭ সালের ৩০ মে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার উপকূলে প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’।

২০১৯ সালের মে মাসের শুরুতে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ আঘাত হানে। যার বাতাসের গতিবেগ প্রতি ঘণ্টায় ১৬০ থেকে ১৮০ কিলোমিটার সর্বোচ্চ উঠেছিল ২৫০ কিলোমিটার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

seventeen − eleven =