Templates by BIGtheme NET
৩১ মে, ২০২০ ইং, ১৭ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৭ শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী

তাইওয়ানকে পুনরেকত্রীকরণের আকাঙ্ক্ষার ক্ষেত্রে ‘শান্তিপূর্ণ’ বিশেষণ বাদ দিয়েছে চীন

প্রকাশের সময়: মে ২২, ২০২০, ৭:৪৪ অপরাহ্ণ

তাইওয়ানকে পুনরেকত্রীকরণের আকাঙ্ক্ষার ক্ষেত্রে ‘শান্তিপূর্ণ’ বিশেষণ বাদ দিয়েছেন চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং। তাইপের সঙ্গে সম্পর্ক যখন খারাপ থেকে আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে, তখন চীনা নীতিতে এই স্পষ্ট পরিবর্তন দেখা গেছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এই তথ্য জানা গেছে। করোনাভাইরাস মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকেই চীনের বিরুদ্ধে ক্রমাগত সামরিক হয়রানির অভিযোগ করে আসছে তাইওয়ান।

দ্বীপটিতে নিয়মিতভাবেই চীনা যুদ্ধবিমান ও যুদ্ধজাহাজকে টহল দিতে দেখা যাচ্ছে। তাইওয়ানকে সবচেয়ে স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক ইস্যু বলে আখ্যায়িত করেছে চীন।

তাইওয়ানকে নিজেদের অধীনস্ত একটি প্রদেশ হিসেবে দাবি কখনোই ত্যাগ করবে না তারা। যে কারণে তাইওয়ান প্রণালী এখন সম্ভাব্য সংঘাতের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বার্ষিক পার্লামেন্ট অধিবেশনে দেয়া বক্তৃতায় লি কেকিয়াং বলেন, তাইওয়ানের স্বাধীনতা চাওয়া যে কানো বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতার কঠোর বিরোধিতা ও প্রতিরোধ করা হবে।

তিনি বলেন, তাইওয়ান প্রণালী কেন্দ্রীক সহযোগিতা ও বিনিময় বাড়াতে নীতিমালা ও পদক্ষেপে উন্নত করেছে চীন। তাইওয়ানের নাগরিকদেরও সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দেন চীনা প্রধানমন্ত্রী।

তাইওয়ানের স্বাধীনতার বিরোধিতা ও পুনরেকত্রীকরণের সহায়তা করতে চীনের সঙ্গে যোগ দিতে তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন লি কেকিয়াং।

কিন্তু পুনরেকত্রীকরণের সঙ্গে কোনো ‘শান্তিপূর্ণ’ শব্দ যোগ করা হয়নি।

গত চার দশক ধরে পার্লামেন্টের ভাষণ ও তাইওয়ানের প্রসঙ্গ উল্লেখ করার সময় চীনের নেতারা এই ‘শান্তিপূর্ণ’ শব্দটি ব্যবহার করে আসছেন।

চীনের একনায়কসুভল শাসনের অধীনে যাওয়ার কোনো আগ্রহ নেই গণতান্ত্রিক তাইওয়ানের।

তাইওয়ানের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ’ শব্দের অনুপস্থিতি দ্বীপটি নিয়ে চীনা নীতির কোনো মৌলিক পরিবর্তনের আভাস দিচ্ছে না। শান্তিপূর্ণ পুনরেকত্রীকরণের ধারনা নিয়ে তারা এখনো আলোচনা করছেন। কেবল পরোক্ষ ভাষাগত প্রকাশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

4 × five =