Templates by BIGtheme NET
১৩ জুলাই, ২০২০ ইং, ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ২১ জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী

করোনার দিনেও দেশ ছাড়লেন যারা

প্রকাশের সময়: মে ৩০, ২০২০, ৪:৪৭ অপরাহ্ণ

করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ সবরকম আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। তবে উড়োজাহাজ ভাড়া করে দেশ ছেড়েছেন বাংলাদেশের কিছু স্বনামধন্য ব্যক্তিবর্গ। যাদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপি নেতা ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান, বেক্সিমকো গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা সোহেল এফ রহমান ও তার ছোট ভাই সালমান এফ রহমান। এছাড়া আরও দেশ ছেড়েছেন সিকদার গ্রুপের এমডি রন হক সিকদার ও তার ভাই দিপু হক সিকদার।

তাদের হঠাৎ করে দেশ ছাড়ার বিষয়টি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

গত ২৮ মে ভাড়া করা একটি চার্টার উড়োজাহাজে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন বিএনপি নেতা ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোর্শেদ খান। ওই ফ্লাইটে যাত্রী হিসেবে শুধু তারা দুজনই ছিলেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এএইচএম তৌহিদ উল-আহসান।

জানা গেছে, দুদকের মামলা ঝুলছিলো এম মোরশেদ খানের ঘাড়ে। তার হঠাৎ এভাবে চলে যাওয়া বেশ বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। যদিও বিএনপির এ নেতার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে তিনি চিকিৎসার জন্য দেশ ছেড়েছেন।

এদিকে, ২৯ মে উড়োজাহাজ ভাড়া করে স্বস্ত্রীক যুক্তরাজ্যে গেছেন বেক্সিমকো গ্রুপের চেয়ারম্যান সোহেল এফ রহমান। এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান মো. মফিদুর রহমান।

সোহেল এফ রহমান বেক্সিমকো গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা এবং বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান সালমান রহমানের বড় ভাই। উনারা দুইটা ফ্লাইট চার্টার করেছিলেন । একটাতে উনারা গেছেন, আরেকটায় সালমান এফ রহমানের বড় ভাই গেছেন।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন সালমান এফ রহমান। এছাড়া তার আরও একটি পরিচয় রয়েছে। তিনি সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খানের বেয়াই। যিনি একদিন আগে স্ত্রীসহ যুক্তরাজ্যে গেছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সোহেল এফ রহমানের মেয়ে লন্ডনে থাকেন, তিনি অন্তঃসত্ত্বা। করোনাভাইরাস সঙ্কটে একমাত্র মেয়ের পাশে থাকতেই তিনি এবং তার স্ত্রী বিমান ভাড়া করে দেশ ছেড়েছেন। তবে মোরশেদ খান দম্পতির লন্ডন যাত্রার সঙ্গে রহমান দম্পতির যাত্রার কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন পরিবারের ওই সূত্রটি।

এদিকে, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে আরোপিত বিধি নিষেধের মধ্যেই গত ২৫ মে সিকদার গ্রুপের মালিকানাধীন একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে দুই জন যাত্রী নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ব্যাংককের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়, এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে যাওয়া এই দুই ‘মুমূর্ষু রোগী’ হলেন— সিকদার গ্রুপের এমডি রন হক সিকদার ও তার ভাই দিপু হক সিকদার।

তারা দুই জনই ব্যাংক থেকে লোন নেওয়ার ইস্যুতে দুই শীর্ষ ব্যাংক কর্মকর্তাকে গুলি করার হুমকি ও নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ গত ২৫ মে দুই জন যাত্রী নিয়ে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সটি থাইল্যান্ডের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে বলে জানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

2 + 12 =