Templates by BIGtheme NET
২৫ অক্টোবর, ২০২০ ইং, ৯ কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

ভোটের জন্য নেয়া বিএনপি নেতাদের অর্থ যাচ্ছে কই?

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ৮:৫০ অপরাহ্ণ

দীর্ঘদিন থেকে রাজনৈতিক মাঠে নিস্ক্রিয় রয়েছে মাঠের বিরোধীদল খ্যাত বিএনপি। দুই একটি সংবাদ সম্মেলন ছাড়া ২০১৮ সালের নির্বাচনের পর রাজনৈতিক কার্যক্রমে অনুপস্থিত দলটির নেতারা।

বিভিন্ন সময় হওয়া উপনির্বাচনগুলোতে অংশগ্রহণ করলেও নির্বাচনের মাঠেও নিস্ক্রিয় দলটির প্রার্থীরা। দেখা যায়নি নির্বাচনী প্রচারণায়।ভোট কেন্দ্রেও দেখা যায়নি বিএনপি প্রার্থীর কোন এজেন্ট।

অভিযোগ উঠেছে নির্বাচনী মাঠের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ না করলেও বিএনপির শিল্পপতিদের থেকে নির্বাচন ইস্যুতে নেওয়া হচ্ছে মোটা অংকের অর্থ, যার ব্যয়ের কোন হিসেব দেওয়া হচ্ছে না।

২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর অনুষ্ঠিত হওয়া সবকটি উপনির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে বিএনপি। তবে তার একটিতেও নির্বাচনী মাঠে ছিলো না দলের প্রার্থীরা। আর সবকটিতেই নির্বাচনের দিন দুপুরে নির্বাচন বর্জন করে পুণ-তফসিলের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির প্রার্থী।

সবশেষ ২৬ সেপ্টেম্বরের পাবনা-৪ আসনের নির্বাচনে সরজমিনে দেখা যায়, ভোট কেন্দ্রগুলোতে বিএনপির কোন এজেন্ট নেই। মাঠেও নেই বিএনপির কোন নেতাকর্মী। এমনকি দলটির প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবকেও দেখা যায়নি নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রগুলো পর্যবেক্ষণে। পরে বেলা ১২ টায় নির্বাচন বর্জন করে নতুন করে তফসিলের দাবি জানান বিএনপির এই প্রার্থী।

এদিকে, নির্বাচনী খরচের অজুহাতে বিপুল পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ করা হলেও এযাবৎ তা ব্যয় করার দৃশ্যমান কোনো খাত চোখে পড়েনি বলে বিএনপির কয়েকজন শিল্পপতির অভিযোগ। এ নিয়ে দলের শীর্ষ পর্যায়ে আলোচনা শুরু হবার আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

অন্যদিকে, বার্ষিক ব্যয়ের হিসেবে নির্বাচনী খরচের জন্য নেওয়া অর্থ কোন খাতে ব্যয় করা হচ্ছে তাও জানানো হচ্ছে না বলে প্রকাশ্যেই অভিযোগ উঠছে বিএনপিতে।

তৃণমূলের নেতারা প্রকাশ্যেই নির্বাচনে তাদের এজেন্ট না থাকা ও কার্যক্রম চোখে না পড়ার কারণ হিসেবে দল থেকে ফান্ড না দেয়ার কথা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে বিএনপির অর্থ বিভাগের সাথে যোগাযোগ করা হলে দলটির একজন সহ-কোষাধ্যক্ষ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, নির্বাচনের খরচের জন্য যে অর্থ সংগ্রহ করা হয় তা হাই কমান্ডের নিয়ন্ত্রণে ও তত্ত্বাবধানে থাকে।সেটি আমাদের হাতে থাকেনা।

তবে জাতীয় নির্বাচন বা উপনির্বাচনগুলির জন্য সংগৃহীত ফান্ড থেকে নির্বাচনী খরচ পরিচালনার কথা থাকলেও প্রার্থীরাই করে থাকেন বলেও তিনি জানান।

আর এ কারণে নির্বাচনে জয়ী হবার সম্ভাবনা না থাকলে প্রার্থীরা মিছিল মিটিং এমনকি অর্থ খরচ করে এজেন্ট নিয়োগও করতে চাননা।

তাহলে নির্বাচনের নামে সংগ্রহ করা অর্থ যায় কোথায়? এ বিষযে পরিস্কার কোনো ধারণা নেই কারোই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

16 + 6 =