Templates by BIGtheme NET
২৫ অক্টোবর, ২০২০ ইং, ৯ কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

ভাঙনের মুখে ভিপি নুরের ছাত্র পরিষদ

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০, ৯:২০ অপরাহ্ণ

প্রতিষ্ঠার পর প্রথমবারের মতো ভাঙনের কবলে পড়তে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ। বিভিন্ন মতোবিরোধ, দলে ঠাই না পাওয়া ও সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ বেরিয়ে যাওয়া নেতারাই নতুন করে কমিটি দেওয়ার চেষ্টা করছেন বলে জানা গেছে।

কোটা সংস্কারের দাবিতে রাজনীতির মাঠে প্রতিষ্ঠিত হওয়া দলটিতে ভাঙনে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ও গণফোরামের ছাত্র সংগঠন ‘ঐক্যবদ্ধ ছাত্রসমাজ’ এর সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহ মধুর বিরুদ্ধে।

সূত্র বলছে, ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে মতো বিরোধে সংগঠন ছেড়ে যাওয়া, পদ বঞ্চিত ও বিভিন্ন সময় বহিস্কার হওয়া নেতারাই নতুন করে কমিটি করতে যাচ্ছেন। যাদের নেতৃত্বে রয়েছেন সংগঠনটির সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মোহাম্নদ উল্লাহ মধু ও এপি এম সুহেল।

এ বিষয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদের বর্তমান নেতাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক রাশেদ খাঁন বলেন, এ বিষয়ে আমাদের কাছে কোন তথ্য নেই। তবে কেউ যদি কোটা সংস্কারের ব্যানারে নতুন কমিটি দেয় সেটা দেশের মানুষ গ্রহণ করবে কিনা তাও দেখার বিষয়। এ বিষয়ে আপাতত গণমাধ্যমে কোন বক্তব্য দিতে রাজি হননি তিনি।

তবে নাম প্রকাশ না করা শর্তে ছাত্র অধিকার পরিষদের একজন নেতা বলেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে সরাসরি যুক্ত থাকার অভিযোগে অনেককেই নতুন কমিটিতে রাখা হয়নি। তারাই নতুন করে কমিটি দেওয়ার চেষ্টা করছে।

এদিকে ছাত্র অধিকার পরিষদের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ও ঐক্যবদ্ধ ছাত্র সমাজের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহ মধু বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত কোটা সংস্কারের সাথে আমার সম্পর্ক ছিল। বিভিন্ন কারণে আমার সাথে দুরত্ব তৈরি হয়েছে। তবে সংগঠনটির অন্য কোন গ্রুপের সাথে আমার যুক্ত হওয়ার বিষয়টি সত্য নয়। অন্য কেউ নতুন দল বা পাল্টা কমিটি গঠনের বিষয়ে আমার জানা নেই এবং সম্পৃক্ততাও নেই।

জানা যায়, কোটা সংস্কারের নেতাদের সাথে গণফোরামের ছাত্র সংগঠন ঐক্যবদ্ধ ছাত্রসমাজের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্নদ উল্লাহ মধুর বিভিন্ন সময় মতো বিরোধ তৈরি হয়েছে। যার প্রেক্ষিতে দীর্ঘদিন থেকে তিনি সংগঠনে নিষ্ক্রিয় ছিলেন। মূলত কোটা সংস্কারের কেন্দ্রীয় যুগ্ম আহবায়কের পদে থাকা অবস্থায় ঐক্যবদ্ধ ছাত্র সমাজের সাথে যুক্ত থাকাসহ নানা কারণে রাশেদ, নুরদের সাথে তার দুরত্ব তৈরি হয় বলে জানা গেছে।

আর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক এপি এম সুহেলকে সংগঠন থেকে গত ৪ মে বহিস্কার করা হয়। সে সময় সংগঠনের পক্ষ থেকে সুহেলের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা বহির্ভূত আচরণের অভিযোগ তোলা হয়।

এছাড়া নতুন কমিটিতে পদ বঞ্চিত হয়ে সংগঠন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন খুলনা জেলা সাবেক আহবায়ক আমিনুর রহমান, ঢাকা কলেজের সাবেক আহবায়ক ইসমাইল সম্রাটসহ কয়েকজন নেতা। তাদেরকেই নতুন এই কমিটিতে দেখা যেতে পারে বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

six + ten =