Templates by BIGtheme NET
৩১ অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১৫ কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

হাওরে যোগাযোগের নতুন দিগন্ত, বদলে গেল ভাগ্য

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ৮, ২০২০, ৭:৪৯ অপরাহ্ণ

একটি পাকা সড়ক ঘিরে দিনবদলের স্বপ্ন দেখছেন হাওরবাসী। বৃহস্পতিবার (০৮ অক্টোবর) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে হাওরের বিস্ময় কিশোরগঞ্জের ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়কের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নতুন এ সড়ক নির্মাণের ফলে বদলে যাচ্ছে এসব এলাকার আর্থসামাজিক অবস্থা। বেড়েছে শ্রমজীবী মানুষের কর্মসংস্থান। যোগাযোগের ক্ষেত্রে উন্মোচিত হয়েছে সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত।

jagonews24

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ সড়ক প্রকল্প বাস্তবায়নে রাষ্ট্রপতির অবদান রয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি যদি উদ্যোগ না নিতেন, চাপ সৃষ্টি না করতেন তাহলে এটি হতো কি-না সন্দেহ ছিল। তারই উদ্যোগে এবং আগ্রহে সড়কটি করা হয়েছে। এটি নির্মাণের ফলে হাওরে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হলো।

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাওর থেকে ‘বর্ষায় নাও, শুকনায় পাও’ বিদায় নিয়েছে।

jagonews24

তিনি বলেন, যখন যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হবে, মানুষের পণ্য পরিবহনের সুবিধা হবে। সেখানে মানুষের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বিতা ফিরে আসবে এবং বাংলাদেশ হবে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ।

জলের বুক চিরে উন্নতমানের প্রশস্ত উঁচু পাকা রাস্তা কেবল হাওরের সৌন্দর্য বাড়ায়নি; বরং বদলে দিয়েছে হাওরবাসীর ভাগ্যও। সড়ক ঘিরে নতুন করে যোগাযোগ ব্যবস্থায় এসেছে পরিবর্তন। কর্মসংস্থান বেড়েছে মানুষের।

স্বপ্নের অল ওয়েদার সড়ক ঘিরে এলাকার মানুষের আয় বেড়েছে। বেড়েছে একে-অপরের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ। কৃষক তার উৎপাদিত ফসল সহজে পরিবহনের সুযোগ পাচ্ছেন। এতে জেলার সামগ্রিক অর্থনীতির চাকা গতিশীল হচ্ছে। হাওরজুড়ে এখন পর্যটন শিল্প বিকাশের হাতছানি।

jagonews24

ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অল ওয়েদার সড়কের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কামরুল ইসলাম শাহজাহান, মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলম, ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান, অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী কাজী শাহরিয়ার হোসেন।

এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, একসময় হাওরবাসী ছিল সব ধরনের সুবিধাবঞ্চিত। এ সড়ক হওয়ায় কৃষক তার ফসলের ন্যায্যমূল্য পাবে। তিন উপজেলায় সড়ক যোগাযোগ সহজ হয়েছে। এলাকায় কর্মসংস্থানের সুযোগ বেড়েছে। বেড়েছে পর্যটনের সম্ভাবনা।

জানা গেছে, মিঠামইন থেকে বালিখোলা পর্যন্ত উড়াল সেতু তৈরি করে জেলা সদর এবং সড়ক বাড়িয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর হয়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সঙ্গে এটিকে সংযুক্ত করা হবে। বিষয়টি জানান সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী। গত অর্থবছর ৮৭৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৯.৭৩ কিলোমিটার দীর্ঘ ‘অল ওয়েদার সড়ক’ নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

2 × three =