Templates by BIGtheme NET
২০ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৭ বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ৭ রমজান, ১৪৪২ হিজরি

মামুনুল হকের কুকর্ম এখনও মানতে নারাজ তার অনুসারীরা

প্রকাশের সময়: এপ্রিল ৭, ২০২১, ৭:১৭ অপরাহ্ণ

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে একজন নারীসহ অবরুদ্ধের পর একের পর এক টেলিফোন ফাঁসে মামুনুল ফেঁসে গেলেও, সবকিছু পরিষ্কার হলেও, তিনি ভুল করতে পারেন এটা এখনও বিশ্বাস করতে পারছে না তার অনুসারীরা।

তাদের অন্ধ ভক্তি এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, মামুনুল হক ফাঁস হওয়া টেলিফোন নিয়ে নিজেই চ্যালেঞ্জ করার সাহস না পেলেও ভক্তরা করছে।

মামুনুলের স্ত্রী, পরিবারের সদস্যরা তার দ্বিতীয় বিয়ে সম্পর্ক না জানলেও এরা জেনেছে। কথিত দ্বিতীয় স্ত্রীর পুলিশে দেওয়া বয়ান নিয়ে তার মা-বাবা, সন্তানের সন্দেহ না থাকলেও ভক্তদের কাছে মনে হচ্ছে এটা সরকারের কোনো কৌশল। সন্তানের সঙ্গে মায়ের সংলাপ, সন্তানের ভিডিও ম্যাসেজ তাদের কাছে মনে হয় এডিট করা।

বলে রাখা দরকার, ধর্মের ওপর অন্ধ বিশ্বাস রাখা যায়, তবে ধর্ম নিয়ে যুক্তি-তর্ক চলে না, ধর্ম বিশ্বাস এমনই। কিন্তু ধর্মের সঙ্গে ধর্মীয় রাজনৈতিক নেতাদের ওপরও অন্ধ বিশ্বাস স্থাপনেই যত আপত্তি। আর এখানে সেটাই হয়েছে।

মামুনুল হক যে একজন মিথ্যাবাদী, এটা জাতির কাছে প্রমাণ দিয়েছেন তিনি নিজেই। কারণ এখন পর্যন্ত তিনি সেই নারীর (জাান্নাতুল আরা ঝর্ণা) বিবাহের কোনো প্রমাণিক দলিল দেখাতে পারেননি। কিন্তু মামুনুল সেদিন রিসোর্টে সমবেত লোকজনের কাছে হোটেলের রেজিস্টারে মহিলাটির নাম তার আসল স্ত্রীর নাম বলেছেন, টেলিফোনে স্ত্রীকে এই ঘটনায় মিথ্যা বলার পরামর্শ দিয়েছেন। এগুলোই প্রমাণ করে মামুনুল হক একজন মিথ্যাবাদী।

স্বভাবই প্রশ্ন আসে, যারা মিথ্যা বলতে পারে, তারা কী ধর্ম পালন করবে? আর মানুষকে কী ধর্ম শেখাবে? এমন মানুষ দেশ ও জাতির শত্রু বলে জানান ধর্ম বিশ্লেষকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

thirteen − 6 =