Templates by BIGtheme NET
৩ আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৯ শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৩ জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

দেশিয় মাছ রক্ষায় যে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট

প্রকাশের সময়: জুন ১২, ২০২১, ২:৫৪ অপরাহ্ণ

বিলুপ্তপ্রায় মাছগুলোকে রক্ষায় বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিশেষ উদ্যোগের কারণে এক যুগে দেশি ছোট মাছের উৎপাদন বেড়েছে অন্তত চার গুণ।

বিলুপ্তপ্রায় ৬৪টি প্রজাতির মধ্যে ২৯টির মাছের বাণিজ্যিক চাষাবাদ শুরু হয়েছে। সর্বশেষ সফলতায় যুক্ত হয়েছে বিলুপ্ত প্রজাতির পিয়ালি মাছ। প্রথমবারের মতো এ মাছের প্রজনন ও পোনা উৎপাদন কৌশল উদ্ভাবন করতে সক্ষম হয়েছে বিজ্ঞানীরা।

জানা যায়, মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের আওতাধীন সান্তাহার প্লাবনভূমি উপকেন্দ্র থেকে যমুনা, বাঙালি, আত্রাই নদীসহ বিভিন্ন উৎস থেকে পিয়ালি মাছের পোনা সংগ্রহ করে উপকেন্দ্রের পুকুরে তা নিবিড়ভাবে প্রতিপালন করা হয়।

এ সময় পিয়ালি মাছের খাদ্য ও খাদ্যাভ্যাস পর্যবেক্ষণ করে খাদ্যাভ্যাস অনুযায়ী খাবার সরবরাহ করা হয়। প্রাকৃতিক জলাশয়ে এরা মূলত প্লাঙ্কটনভোজী।

গবেষণাকালে একটি ৬ গ্রাম ওজনের পিয়ালি মাছ বিশ্লেষণ করে এর পেটে ৮০ দশমিক ৭১ শতাংশ ফাইটোপ্লাঙ্কটন এবং ১৯ দশমিক ২৯ শতাংশ জুপ্লাঙ্কটন পাওয়া যায়।

এ ছাড়া বছরব্যাপী জিএসআই ও হিস্টোলজি পরীক্ষণের মাধ্যমে পিয়ালি মাছের সর্বোচ্চ প্রজনন মৌসুম নির্ধারণ করা হয়। এ প্রজাতির মাছ সাধারণত বর্ষাকালে অগভীর জলাশয়ে প্রজননে অংশগ্রহণ করে।

আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন) বাংলাদেশের হিসাবমতে, দেশের ২৬০ প্রজাতির মিঠাপানির মাছের মধ্যে এক-চতুর্থাংশ, অর্থাৎ ৬৪ প্রজাতির মাছ বিলুপ্তপ্রায়। এর মধ্যে ৯ প্রজাতির মাছ অতিবিপন্ন, ৩০ প্রজাতির বিপন্ন এবং ২৫ প্রজাতির শঙ্কাগ্রস্ত শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত।

মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট গবেষণায় পিয়ালিসহ ২৯ প্রজাতির মাছের প্রজনন ও চাষাবাদ কৌশল উদ্ভাবন করেছে। এর মধ্যে পাবদা, গুলশা, টেংরা, বাটা, ফলি, মহাশোল, খলিশা, বৈরালী, ঢেলা, বাতাসি ইত্যাদি অন্যতম। বাজারে এসব মাছের প্রাপ্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে। দামও সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যেই।

দেশি প্রজাতির ছোট মাছ সুরক্ষায় বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট দেশে প্রথমবারের মতো একটি ‘লাইভ জিন ব্যাংক’ প্রতিষ্ঠা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

two × four =