Templates by BIGtheme NET
১০ জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৬ পৌষ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ৬ জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

দলীয় রাজনীতিতে আটকে আছে আমার বোনের চিকিৎসা : শামীম এস্কান্দার

প্রকাশের সময়: জানুয়ারি ১০, ২০২২, ৪:২১ অপরাহ্ণ

২০১৮ সালেই খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য সরকারের সাথে দেন-দরবার শুরু করেছিলেন বেগম খালেদা জিয়ার ভাই শামীম এস্কান্দার। যেভাবেই হোক বোনের জামিনের ব্যবস্থা করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেই সময়ে লন্ডন থেকে আপত্তি জানায় তার ভাগনে তারেক জিয়া এবং তার সঙ্গে সুর মিলান বিএনপির কিছু নেতা।

তখন তাদের বক্তব্য ছিল, আপোষ করে বেগম জিয়ার মুক্তি হবে অপমানজনক। এই প্রক্রিয়ায় বিএনপি তারেক জিয়ার নির্দেশে প্রথমে আন্দোলন, তারপর আইনি লড়াইয়ে নামে। কিন্তু সবকিছুতেই ব্যর্থ হয়ে শেষপর্যন্ত বেগম জিয়াকে কারাগারেই থাকতে হয়।

তারপরও শামীম এস্কান্দারের একক প্রচেষ্টায় ২০২০ সালের ২৪ মার্চ খালেদা জিয়াকে জামিন দেয়া হয়, যা পরবর্তীতে তিন দফা বাড়ানো হয়েছে।

জানা যায়, শামীম এস্কান্দারই বেগম জিয়ার সঙ্গে দেখা করে তার সম্মতি নিয়ে সরকারের সঙ্গে দেন-দরবার শুরু করেন। এর অংশ হিসেবে গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। এরপর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আবেদনটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠান।

এই পর্যায়ে বেগম জিয়া করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেন। দ্বিতীয় দফায় আবার তিনি গত ১৩ নভেম্বর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন। এ সময় তার লিভার সিরোসিস ধরা পড়ে। এ পর্যায়ে আবার শামীম এস্কান্দার তৎপর হন।

তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করছিলেন। শামীম এস্কান্দার আশাবাদী ছিলেন যে, শেষ পর্যন্ত হয়তো সরকার তার বোনের ব্যাপারে সহানুভূতিশীল হবেন।

ঠিক সেই মুহূর্তে শামীম এস্কান্দারকে না জানিয়েই বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে আন্দোলনের ঘোষণা দেয় বিএনপি। এর ফলে সমঝোতার মাধ্যমে বেগম জিয়ার বিদেশ যাওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে ভেস্তে যায়। এরপর থেকেই স্থবির আছে খালেদা জিয়ার মুক্তির সকল কার্যক্রম।

এ ঘটনার পর ক্ষুব্ধ শামীম এস্কান্দার নিরুত্তাপ, নিঃস্পৃহ ও হাত-পা গুটিয়ে বসে আছেন এবং যাবতীয় দেন-দরবার থেকে নিজেকে সরিয়ে রেখেছেন বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক নেতাকর্মীকে শামীম এস্কান্দার বলেছেন, তারেক রহমান, মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির বেশকিছু নেতা খালেদা জিয়াকে নিয়ে রাজনীতি করছেন। এই মুহূর্তে নেত্রী খালেদার চেয়ে ব্যক্তি খালেদার বিদেশে চিকিৎসা বেশি জরুরি। কিন্তু জীবনের এই অন্তিম মুহূর্তে নোংরা রাজনীতির যাতাকলে আটকে আছে তার বিদেশ যাত্রা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

12 + 16 =